Skip to main content

ইন্টারনেট কি? আসুন ইন্টারনেটে নিজের লাইফ এবং ক্যারিয়ার গড়ে তুলি

আজকের এই দিনে বাস করে “ইন্টারনেট” শব্দটা শুনেনি এমন মানুষ হয়তো খুঁজে পাওয়া যাবে না; তবে “ইন্টারনেট জিনিসটা আসলে কি?” এমন প্রশ্ন করলে একদল মানুষ মুখ “হা” করে হতভম্ব হয়ে রইবেন আর অন্যদল হয়তো Google হাতড়ে উত্তর খুঁজে বের করার চেষ্টা করবেন!

আসুন আজ আমরা ইন্টারনেট এর আদ্যপ্রান্ত আলোচনা করবো এবং এই লেখাটির শেষে ইন্টারনেট হতে কিভাবে নিজের লাইফ এবং ক্যারিয়ার গড়তে পারেন সেটা নিয়ে আলোচনা করবো ইনশাআল্লাহ।

ইন্টারনেট কি?

ইন্টারনেট হলো এমন একটি জাল বা নেটওয়ার্ক সিস্টেম যার মাধ্যমে এই পৃথিবীর প্রায় সকল কম্পিউটার পরস্পরের সাথে সংযুক্ত রয়েছে।
মনে করুন আপনার অফিসে এবং আপনার বাসায় দুটি কম্পিউটার আছে যা একটি তার (ক্যাবল) এর মাধ্যমে যুক্ত আছে। এখন আপনি অফিসে বসে বাসার কম্পিউটারে একটি ফটো বা ফাইল ট্রান্সফার করলেন, সহজ কথাতে এটাই হলো ইন্টারনেট!

ভাবছেন আমি হয়তো আপনার সাথে মজা করছি; ইন্টারনেট যদি এতোই সোজা হতো তাহলে ইন্টারনেটের তার বা ক্যাবল কোথায় আর ইন্টারনেট তো তাহলে ফ্রি হওয়ারই কথা!

আসুন আপনাকে আরও সহজভাবে বুঝিয়ে দিচ্ছি.

এই পৃথিবীর গভীরতম সমুদ্রের নিচে আছে অপটিক্যাল ফাইবার (আলোক তন্তু) যার মাধ্যমে ডাটা বা তথ্য আদান প্রদান করা হয়; সেই অপটিক্যাল ফাইবারের মাধ্যমে তিনটি ধাপে [Tier 1, Tier 2 এবং Tier 3] ইন্টারনেট আপনার এলাকার টাওয়ারে পৌছায় আর সেই টাওয়ারের ফ্রিকোয়েন্সি ট্রান্সমিশনের মাধ্যমে গ্লোবালি যেই কমিউনিকেশন সিস্টেম গড়ে উঠে তাই হলো ইন্টারনেট।

ইন্টারনেট ব্যবহার করার জন্য টাকা কেন খরচ করতে হয়?

বিভিন্ন দেশের Tier 1 সমুদ্রের নিচে নিজেদের অর্থায়নে অপটিক্যাল ফাইবার বা সাবমেরিন ক্যাবল বসায় যেমন বাংলাদেশের  Tier 1 হলো Bangladesh Submarine Cable Company Limited; যা দেশের সমুদ্র তীরবর্তী অঞ্চলে অপটিক্যাল ফাইবারগুলো নিয়ে আসে এবং সেখান হতে Tier 2 কোম্পানি যেমন বাংলাদেশের গ্রামীনফোন, বাংলালিংক প্রভৃতি প্রতি জিবি হিসেবে ইন্টারনেট কিনে নেয়, আর Tier 3 হলো স্থানীয় কিছু ISP বা ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার (ইন্টারনেট সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান)।
ইন্টারনেটের কোন একক মালিক নেই তাই আপনি যখন www.google.com ভিজিট করেন তখন Google কিন্তু আপনার কাছের থেকে টাকা নেয়না বরং যতোটুকু মেগাবাইট ফুরাচ্ছেন এর বিপরীতে Tier1, Tier2 এবং Tier3 হ্যান্ড-টু-হ্যান্ড ওয়্যেতে আপনার খরচ করা ইন্টারনেট বিলটা ভাগ করে নিচ্ছে।

যদি আপনার মনে হয় ইন্টারনেট মানেই শুধুই ওয়্যারলেস নেটওয়ার্ক তাহলে জেনে রাখুন আপনার হাতের এনড্রোয়েড ডিভাইসের ব্লুটুথ কিংবা হটস্পট-ওয়াইফাই সিস্টেম কিন্তু ঐ একই ফ্রিকোয়েন্সি ট্রানমিশনের মাধ্যমে কমিউনিকেশন গড়ে তুলে অর্থাৎ আপনার হাতের মুঠোর মাঝেই আছে ছোট্ট এক মিনি ইন্টারনেট!

ইন্টারনেটের মাধ্যমে কম্পিউটার কিভাবে সংযুক্ত থাকে?

এই পৃথিবীর সকল কম্পিউটারের গঠনই তো প্রায় একইরকম যার আছে একটা মনিটর, একটা সিপিইউ, একটা কিবোর্ড এর একটা নেংটি ইঁদুর আইমিন মাউস; তাহলে এই কম্পিউটারগুলো কিভাবে পরস্পর অদৃশ্য এই ইন্টারনেটের জালে সংযুক্ত থাকে?
আসলে প্রতিটি কম্পিউটার IP Address (Internet Protocol Address) এর মাধ্যমে পরস্পর যুক্ত থাকে যেখানে প্রতিটি IP Address হলো একটি ইউনিক বা স্বতন্ত্র পরিচিত।
আপনি যদি আপনার কম্পিউটার হতে আইপি এড্রেস বের করতে চান তাহলে প্রথমে Start->Run->খালি ঘরে লিখুন cmd
এবার কী-বোর্ড থেকে এন্টার চাপুন।
একটি কমান্ড এরিয়া দেখতে পাবেন সেখানে লিখুন netstat -n এরপর
এন্টার চাপুন। একটি লিস্ট আপনার সামনে আসবে সেখানে লোকাল এড্রেসের দিকে খেয়াল করুন, যেটি প্রথমে আসবে সেটিই আপনার আইপি এড্রেস।
এছাড়াও আপনি খুব সহজে Google এ গিয়ে  what is my ip address লিখে সার্চ করলে গুগল মামাই আপনাকে আপনার নেটওয়ার্কের IP Address জানিয়ে দিবে।

ইন্টারনেট হতে নিজের লাইফ এবং ক্যারিয়ার গড়ুন

শুনতে শ্রুতিকটু হলেও সত্য যখনই আমি লাইফ এবং ক্যারিয়ার নিয়ে কথা বলবো তখনই সবার আগে আপনার মনে আসবে “ইন্টারনেট হতে কিভাবে টাকা উপার্জন করা যায়” অথচ সত্যতা হলো বাংলাদেশের সিংহভাগ আউটসোর্সিং অনুসন্ধিৎসু এখনও মিছিমিছি মরিচিকার পিছে ছুটছেন।

সবার আগে তিনটি চিরায়ত সত্য স্মরণ করিয়ে দিচ্ছি.

(১) এই জগতে ফ্রি বলে কিচ্ছু নেই (২) ইন্টারনেটে কেউ আপনার মুখ দেখে টাকা দিবে না বরং আপনার মাথার মেরিট দিয়েই টাকা উপার্জন করে নিতে হবে (৩) সফলতার অর্জনের কোন শার্টকাট উপায় নেই

ইন্টারনেট হলো একটি গ্লোবালি ওপেন প্লাটফর্ম যেখানে আপনি আপনার যোগ্যতার বিচারে নিজেকে মূল্যায়ন করাতে পারেন এবং স্বাধীনভাবে উপার্জন করে স্বচ্ছল হতে পারেন।
আপনি চাইলে ফ্রিল্যান্সিং’টাকে নিজের পেশা হিসেবে গ্রহণ করতে পারেন যেখানে ঘরে বসেই লিমিটলেস উপার্জন করা সম্ভব!

ছোট্ট একটা উদাহরণ দিই আপনি www.google.com এ গিয়ে সার্চ করুন how many website build in a minute? তাহলে গুগল মামা আপনাকে ক্যালকুলেশন করে জানিয়ে দিবে এই পৃথিবীতে প্রতি মিনিটে গড়ে প্রায় ৩৮০ টি নতুন ওয়েবসাইট তৈরী হচ্ছে, তাহলে প্রতিদিন তৈরী মোট নতুন ওয়েবসাইটের সংখ্যা হচ্ছে ৩৮০x৬০x২৪= ৫, ৪৭, ২০০। প্রতিদিন এই ৫ লক্ষ ৪৭ হাজার ২০০ টি নতুন ওয়েবসাইট তৈরীর জন্য কতোজন ওয়েব ডেভেলপার দরকার; একবার ভেবে দেখেছেন কি?

শুধু ওয়েব ডেভেলপিং কেন বরং গ্রাফিক্স  ডিজাইন, লোগো ডিজাইন, ফটোশপ, ইলাস্ট্রেশন, আর্টিকেল রাইটিং, কনটেন্ট রাইটিং, রিসার্চ রাইটিং, মোবাইল এপ ডেভেলপমেন্ট, ডাটা এন্ট্রি, ইন্টারনেট মার্কেটিং, এসইও, সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট প্রভৃতি শত শত ফ্রিল্যান্সিং ক্যাটাগরি রয়েছে যেখানে আপনি আপনার নিজের দক্ষতার মূল্যয়ন ঘটিয়ে স্বাধীনভাবে উপার্জন করতে পারেন।

অন্যদিকে শুধু ফ্রিল্যান্সিং নয় বরং আউটসোর্সিং এর ক্ষেত্র আরও ব্যাপক পরিসর। আপনি অল্প কিছু টাকা দিয়ে একটি ডোমেইন এবং শেয়ার্ড হোস্টিং কিনে নিজেই নিজের ওয়েবসাইট তৈরী করে নিতে পারেন এবং এডসেন্স হতে আর্ন করতে পারেন (শুধু  Google Adsence নয় বরং আপনি দেশীয় এডভারটাইজমেন্ট/স্পন্সরশীপ/এফিলিয়েট মার্কেটিং হতেও আপনার ওয়েবসাইট দ্বারা উপার্জন করতে পারেন)।
আপনি চাইলে ই-কমার্স / এফ- কমার্স বিজন্যেস করতে পারেন কিংবা নিজের বাসায় বসেই আইটি রিলেটেড যেকোন বিজন্যেস শুরু করতে পারেন।

আমরা কেন হেরে যায়?

ইন্টারনেট জগতে নিজেকে ওয়েল- স্ট্যাবলিশ করার এতো এতো উপায় থাকার পরও আমরা কেন হেরে যায় জানেন? কারন আমরা ধৈর্য্যবান নই “আমরা ফ্রাস্ট্রেশনে যতোটা সময় নষ্ট করি সেই সময়টুকু যদি নিজের স্কিল বাড়াতে ব্যায় করতাম তাহলে হয়তো বাংলাদেশে বেকারের সংখ্যা আজ শূন্যের কোঠায় থাকতো”।
ইন্টারনেট জগতে মাইক্রোজব ওয়ার্কিং প্লাটফর্মের অভাব নেই- তেমনি ফ্রিল্যান্সিং সাইটেরও কমতি নেই- যতোটুকু কমতি আছে তা হলো আমাদের মেধা, মননশীলতা আর ধৈর্য্যের অভাবে তৈরী হওয়া অলস- সংকীর্ণ মানসিকতা।
আপনি যদি সফল হতে চান তাহলে কালকের আশায় নয় বরং আজ হতে আর এক্ষুনি সফলতার পথে দৌড় লাগান, সফল হওয়া তো সামান্য তফাৎ মাত্র।

সবিশেষ শুধু একটা কথায় বলতে চাই ” ইন্টারনেট সফল হওয়া কোন সোনার হরিণ শিকাড় নয়, প্রয়োজন শুধু ধৈর্য আর অধ্যাবসায় দিয়ে শিকড় হতে শেখড় পর্যন্ত পৌছানোর মতোন ইচ্ছাশক্তি”

ফেসবুকে আমার বন্ধুত্বের নিমন্ত্রণ রইলো→ মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ

আল্লাহ হাফেজ


from WizBD.Com
Source url: https://ift.tt/2ZyMrfi
Tags: Books Free Download PDF, Bangla Jokes, Jobs
পোষ্ট ভালো লাগলে শেয়ার করবেন। আমাদের ফেসবুক পাইজ এ লাইক দিবেন। আমরা সকল পোষ্ট ফেসবুক এ শেয়ার করে থাকি।

Comments

Popular posts from this blog

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এর A to Y টিউটোরিয়াল :: [YouTube SEO Bangla Tutorial]

Keyword Rank Monitoring! (Bangla SEO Tutorial)

বিসিএস এর জন্য প্রয়োজনীয় সব বই ও নোট ডাউনলোড করে নিন [প্রিলি+রিটেন+ভাইভা]

আসসালামুআলাইকুম, সবাই কেমন আছেন? আশা করি
সবাই ভালো আছেন, আজ আমি আপনাদের এর
নিয়ে আসলাম অনেকগুলু BCS এর বই এর
কালেকশন। বইগুলু ডাউনলোড করে রাখুন কাজে
লাগবে। BCS প্রিলিমিনারির জন্য বইসমূহ: 1. প্রিলি বাংলা (সাহিত্য) 2. বাংলা ব্যাকরণ: 3. বাংলা প্রশ্নব্যাংক (বিসিএস ও ব্যাংক) 4. প্রফেসর’স বাংলা 5. প্রফেসর’স ইংরেজি 6. প্রফেসর’স আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি 7. প্রফেসর’স বাংলাদেশ বিষয়াবলি 8. প্রফেসর’স বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি 9. এসিউরেন্স ডাইজেস্ট 10. ওরাকল মানসিক দক্ষতা 11. ওরাকল গাণিতিক যুক্তি 12. লাল নীল দীপাবলি 13. ইজি কম্পিউটার 14. গ্রন্থ সমালোচনা- মোহসিনা নাজিলা সবগুলু বই এর ডাউনলোড লিঙ্ক একসাথে দিয়ে
দিলাম: click here to download সৌজন্যেঃ নিত্য নতুন টিপস পেতে
নিয়মিত
NewTrickBD.GQভিজিট করবেন এবং
সবচেকম টাকায় সাইট তৈরী
করে টাকা ইনকাম করুন 

স্বল্পমুল্যে ওয়াপসাইট বানিয়ে ঘরে বসেই
প্রতিদিন ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা ইনকাম করতে
কল করুন। 01700535894

এমবিএ শিক্ষার্থীদের সবার আগে যে ৫টি কাজ করা উচিত

আপনি ভালো ক্যারিয়ার গড়তে চান, চাকরিতে উন্নতি করতে চান, কিংবা নতুন ব্যবসা খুলতে চান- যে কারণেই এমবিয়ে করুন না কেন, এ সুবিধাগুলো নিতে হলে কিছু বিষয় আপনাকে অবশ্যই পালন করতে হবে। এমবিএ শুধু কোনো ডিগ্রিই নয়, এটা তার চেয়েও বেশি কিছু। আপনার সময় ও এনার্জি ব্যয় করে অর্জিত এ ডিগ্রিকে ঠিকভাবে কাজে লাগাতে হলে নির্দিষ্ট কিছু কাজ করতে হবে। ফরচুন ম্যাগাজিনে দেয়া সাক্ষাৎকারে শীর্ষস্থানীয় একটি প্রতিষ্ঠানের সিইও শেইলা মারসেলো এ বিষয়গুলোই তুলে ধরেছেন। রিপোর্টটি প্রকাশ করেছে বিজনেস ইনসাইডার। ১. নিজের সীমানার বাইরে আসুন আপনি নির্দিষ্ট একটি বিষয় নিয়ে পড়াশোনা করলেও তার বাইরের বিষয়গুলো সম্পর্কেও খবর রাখুন। মার্কেটিংয়ের কোর্স করলে যে আপনার ফাইন্যান্স সম্পর্কে কোনো জ্ঞান থাকা যাবে না, এ ধারণা বাদ দিন। নিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান শুধু একটা বিষয় জানা মানুষ পছন্দ করে না, তারা অনেকগুলো বিষয় জানা মানুষকে চায়। অন্য বিষয়গুলো আপনি কত তাড়াতাড়ি গ্রহণ করতে পারেন ও শিখতে পারেন এটা আপনার দক্ষতা প্রমাণ করে। অনেককিছু জানা একটা ভালো গুণ। ২. যোগাযোগ বাড়ান
আপনার যতো বেশি মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ ও পরিচয় হবে, ততো ভালো ফলাফল পাবেন। এজন্য খ…